প্রকাশঃ Sat, May 1, 2021 11:07 PM
আপডেটঃ Fri, May 7, 2021 1:37 AM


সাহেদের মত আরেক প্রতারক ডা:বাদশা মিয়া অস্ত্রসহ আটক

সাহেদের মত আরেক প্রতারক ডা:বাদশা মিয়া অস্ত্রসহ আটক

রেজওয়ান উল্লাহ,সাতক্ষীরাঃ বাংরাদেশের সবচেয়ে আলোচিত মহাপ্রতারক রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়্যারমান সাতক্ষীরার সাহেদের মত আরও এক প্রতারক  ডা: বাদশা মিয়াকে অস্ত্রসহ আটক করেছে ডিবি পুলিশ। এ সময় তার কাছ থেকে আওয়ামী লীগ নেতাদের প্যাড ও সিল উদ্ধার করা হয়েছে।






তার কোনো ডিগ্রি না থাকলেও সে নিজেকে ডা. এস এম বাদশা মিয়া পরিচয় দিয়ে থাকেন। তাছাড়া বঙ্গবন্ধু স্মৃতি পাঠাগারের ফাউন্ডার চেয়ারম্যান, বঙ্গবন্ধু স্মৃতি সংসদের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও বাংলাদেশ আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা লীগের চিফ অ্যাডভাইজার লেখা প্যাড ব্যবহার করেন তিনি। তিনি সাতক্ষীরার পলাশপোলের হাতুড়ি পাইলস ডাক্তার নুর ইসলামের ছেলে। তবে তার আদি বাড়ি নড়াইল জেলায়।



শনিবার (০১ মে) ভোরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ডিবি পুলিশ ও সদর থানা পুলিশ যৌথ অভিযান চালিয়ে সাতক্ষীরা বাইপাস সড়ক থেকে তাকে আটক করে। এ সময় তার সহযোগী সাংবাদিক পরিচয়দানকারী শফিকুল ইসলাম কৌশলে পালিয়ে যায়। তবে তারা দোকান থেকে বাদশার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে একটি বিদেশি পিস্তল উদ্ধার করা হয়েছে।বাদশা মিয়া নিজেকে এমবিএস ডাক্তার হিসেবে সবার কাছে পরিচয় দিত,চাকরি দেওয়ার নাম করে বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে হাতিয়ে নিয়েছে লাখ লাখ টাকা।

সম্প্রতি চোরা ছবির প্রতারক থেকে সতর্ক থাকার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন সাতক্ষীরা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান। 

সাতক্ষীরা জেলা পুলিশের ফেসবুক পেজে গত ২৯ এপ্রিল এক স্ট্যাটাসে তিনি এ আহ্বান জানান।





স্ট্যাটাসটি পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো:

জনৈক বাদশা মিয়া! বাদশা নামটাতে বেশ বাহাদুরি রয়েছে। আবার যদি নামের আগে ডা. থাকে তাহলে এর বাহাদুরি তো অনেক। এমনই ব্যক্তি শাহেদ টাইপ বাদশা একটি থানার অফিসার ইনচার্জকে (ওসি) হুমকি-ধমকি দিয়ে বিভিন্ন বাহাদুরি দেখানোর চেষ্টা করেন। তার বিরুদ্ধে অনুসন্ধান করতে গিয়ে ভয়ংকর আরেক শাহেদের সন্ধান পাওয়া যায়।



প্রতারণা করে অর্থ আদায় করা এদের মূল ব্যবসা, বাস্তবে কোনো পেশা বা ইনকাম নেই। নামের আগে ডাক্তার পদবিও ব্যবহার করতে দেখা যায়। যদিও ডাক্তারি সার্টিফিকেট নেই কিন্তু আমাদের ইনবক্সে আউট বক্সে জাতিসংঘ মহাসচিব এবং কাবার ইমাম ব্যতীত পৃথিবীর সবার সঙ্গে চোরা টাইপের ছবি পোস্ট করে নিজেকে বর্তমান সময়ের অনেক বড় নেতা প্রমাণ করার চেষ্টা করছেন।




সাতক্ষীরাসহ কয়েকটি জেলায় কয়েক দিন পর পর শাহেদদের উত্থান ঘটে। ছবির ব্যবসা অর্থাৎ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে চোরা পোচ দিয়ে ছবি তুলে মানুষকে বিভ্রান্ত করে। তার মূল ব্যবসা প্রতারণা এবং বোঝা যাচ্ছে দেশব্যাপী ভালোই একটি সিন্ডিকেট গড়ে তুলেছে। সর্বসাধারণকে এ জাতীয় প্রতারক থেকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানাচ্ছি।


কেউ এ ধরনের প্রতারকদের খপ্পরে পড়বেন না। ইতোমধ্যে এদের বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ জমা হয়েছে। বিভিন্ন অফিস-আদালতে রাজনৈতিক নেতাদের সঙ্গে চোরা ছবি উঠিয়ে নিজেকে বড় মাপের নেতা বানানোর অপচেষ্টাচক্রের সদস্য এরা।



www.a2sys.co

আরো পড়ুন