শিরোনাম

প্রকাশঃ Thu, Jun 13, 2024 7:46 PM
আপডেটঃ Wed, Jul 24, 2024 11:51 PM


সভাপতি ভাসুর- ভাবি প্রধান শিক্ষক পার্সেন্টেজে স্কুলের অর্থ আত্মসাত 

সভাপতি ভাসুর- ভাবি প্রধান শিক্ষক পার্সেন্টেজে স্কুলের অর্থ আত্মসাত 

বিদ্যালয়ের সভাপতি ভাসুর। প্রধান শিক্ষক ছোট ভাইয়ের বউ। পার্সেন্টেজে স্কুলের টাকা ভাগাভাগি করে নেন। শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের না জানিয়ে ম্যানেজিং কমিটি নির্বাচনের আয়োজনসহ বিনা রশিদে টাকা সংগ্রহের অভিযোগ উঠেছে বরুড়া উপজেলার বাতাইছড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও সভাপতির বিরুদ্ধে।


স্থানীয়রা বলছেন, সভাপতি ভাসুর- ভাবি প্রধান শিক্ষক হওয়ার কারণে যোগসাজশে এসব কাজ করেন তারা। এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও শিক্ষা অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন অভিভাবকরা। 



স্কুলের অভিভিবক মো. মিজানুর রহমান বলেন,বিদ্যালয়ের সভাপতি ভাসুর। প্রধান শিক্ষক ছোট ভাইয়ের বউ। পার্সেন্টেজে স্কুলের টাকা ভাগাভাগি করে নেন। নির্বাচনের ভোটার তালিকায় অনেক অভিভিবকের নাম নেই। তারা বিনা রশিদে টাকা গ্রহণ করে। এ টাকা সভাপতি-প্রধান শিক্ষক পার্সেন্টেজে ভাগ করে নয়। এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও শিক্ষা অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছি।


বরুড়া বাতাইছড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র হাজী কবির হোসন ও প্রফেসর সোলাইমান মজুমদার বলেন,তারা যোগসাজশে স্কুলের টাকা লুটে নিচ্ছে। আমাদের স্কুলের ঐতিহ্য আছে। সরকারি নিয়ম ঠিকভাবে মানা হয় না।

মিজানুর রহমান বলেন, নির্ধারিত সময়ে পরীক্ষা গ্রহণ করেন না। তারা খেয়াল খুশি মতো স্কুল পরিচালনা করেন।

এছাড়াও স্থানীয় চেয়ারম্যান খলিলুর রহমানের বিরুদ্ধে মিথ্যা সংবাদ ও বাতাইছড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি ও ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের অনিয়ম-দুর্নীতির বিরুদ্ধে মানববন্ধন করেছে অভিভাবক ও এলাকাবাসী। বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) বিদ্যালয়ের সামনে ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন ও প্রতিবাদ করেন তারা। এখানে বক্তব্য রাখেন স্কুলের সাবেক ছাত্র ও অভিভিবক আ. জলিল, জাকারিয়া ভূঁইয়া, জহিরুল ইসলাম পিন্টু, আবুল বাশার,  রুবেল আহম্মদ প্রমুখ। 

অভিযোগের বিষয়ে বাতাইছড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোসা. শাহিনা আক্তার বলেন, ভোটার তালিকা প্রস্তুতে ভুল ছিলো এ জন্য নির্ধারিত সময়ে নির্বাচন হয়নি এটা সঠিক। পার্সেন্টেজে স্কুলের অর্থ আত্মসাত এ কথাটি প্রথম শুনলাম। তারা ক্ষমতার কারণে মিথ্যা প্রচার করছে। 

বরুড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার নু-এমং মারমা মং বলেন, স্কুল সভাপতি ও প্রধান শিক্ষক অনেক তথ্য গোপন করেছেন ম্যানেজিং কমিটি নির্বাচনে। এ বিষয়ে লিখিত ভাবে বোর্ডকে জানানো হয়েছে। বোর্ড একমাসের মধ্যে নির্বাচন করতে বলেছে। সেটিও করতে পারেনি। স্কুলের অর্থ আত্মসাতের বিষয়ে লিখিত দু'টি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত চলমান। আমরা দ্রুত প্রতিবেদন প্রকাশ করবো। 



www.a2sys.co

আরো পড়ুন