শিরোনাম

প্রকাশঃ Tue, Jul 9, 2024 12:15 AM
আপডেটঃ Wed, Jul 24, 2024 11:38 PM


সাজিদ হত্যা করে ফাঁসায় ছাত্রলীগ নেতা অনিককে

সাজিদ হত্যা করে ফাঁসায় ছাত্রলীগ নেতা অনিককে

কুমিল্লা প্রতিনিধি।। ষড়যন্ত্র মূলক মিথ্যা মামলা থেকে অব্যহতি পেয়েছেন কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আবু কাউছার অনিক। একই সাথে অনিকসহ আরো ১০জনকে মামলা থেকে অব্যহতি দিয়েছে আদালত। আলোচিত কুমিল্লার দেবিদ্বারের শান্ত হত্যা মামলায় অভিযুক্ত ছিলেন তারা।



সর্বশেষ সিআইডি'র তদন্তে বেড়িয়ে আসে হত্যাকাণ্ডের চমকপ্রদ তথ্য। বন্ধুকে হত্যা করে সাজিদ পালিয়ে যান যুক্তরাষ্ট্রে৷ রাজনৈতিক ফায়দা নিতে এসব মামলায় কৌশলে জড়ানো হয় সাবেক ছাত্রলীগ নেতা অনিকসহ দশজনকে। মূল হত্যাকারী সাজিদ হয়ে পড়েন মামলার অন্যতম সাক্ষী! গত ১ জুলাই ৪নং আমলী আদালতে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কামাল হোসেন মূল আসামী সাজিদকে গ্রেফতার আদেশ ও অনিকসহ বাকি দশজনকে মামলা থেকে অব্যহতি দেন। 


মামলার তদন্ত প্রতিবেদন সুত্রে জানা যায়, '২০২২ সালের ৯জুলাই স্থানীয় বিরোধের জের ধরে দ্বন্দ্ব হয় দেবিদ্বার নুরপুর গ্রামের দুই পক্ষের মাঝে। এসময় পকেটে থাকা সুইস গিয়ার দিয়ে বন্ধু মেহেদী হাসান শান্তকে পেটে আঘাত করে সাজিদ। শান্তর মৃত্যু নিশ্চিত হওয়ার পর পালিয়ে যায় সাজিদ। ঘটনার ধামাচাপা দিতে ছাত্রলীগ নেতা আবু কাউছার অনিকসহ নিরপরাধ ১১ জনকে ফাঁসানো হয় ৷ কৌশলে সেই মামলার ৫নং সাক্ষী হয় হত্যাকারী সাজিদ। পরে নিজেকে বাঁচাতে যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমায় সে। সিআইডির দীর্ঘ তদন্তে বেড়িয়ে আসে হত্যার মূল রহস্য। 

করোনাকালীন সময়ে বিএনপি নেতার লাশ দাফন ও হ্যালো ছাত্রলীগের মাধ্যমে করোনা রোগীর পাশে দাঁড়িয়ে আলোচনায় আসা কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আবু কাউছার অনিক জানান, 'ছাত্রলীগের রাজনীতি করে মানুষের সেবা করেছি। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে করোনায় আক্রান্ত রোগীর সেবা ও মৃত মানুষের দাফন করেছি৷ আমাদের ভালো কাজে ঈর্শান্বিত হয়ে মিথ্যা মামলায় জড়িয়েছে কিছু রাজনৈতিক ব্যক্তি। আমাদের হয়রানি করাই ছিলো এই মিথ্যা মামলায় জড়ানোর উদ্দেশ্য।

আসামী পক্ষের আইনজীবী সৈয়দ তানভীর আহমেদ ফয়সাল বলেন, 'প্রকৃত আসামীকে আড়াল করতে হত্যাকারীকে মামলায় সাক্ষী করা হয়। নিরপরাধ মানুষকে আসামী করে মামলার মোড় অন্য দিকে ঘুরিয়ে দিতে চেয়েছে। আদালত পিবিআই ও সিআইডি'র দীর্ঘ তদন্ত পর্যবেক্ষণ করে অনিকসহ বাকি দশজনকে অব্যহতি দিয়েছে। একই সাথে সাজিদকে গ্রেফতারের আদেশ দিয়েছে'। 

প্রসঙ্গত, ২০২২ সালে ৯ জুলাই আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দেবিদ্বার উপজেলার ফতেহাবাদ ইউনিয়নের নুরপুরে আমেরিকা প্রবাসী সাজিবের চাকুর আঘাতে শান্ত হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় গুরুতর আহত আরো চারজন। নিহত মেহেদী হাসান শান্ত ফতেহাবাদ ইউনিয়নের নুরপুর গ্রামের সরকার বাড়ির জাকির হোসেনের ছেলে। অভিযুক্ত সাজিব যুক্তরাষ্ট্রে পলাতক রয়েছেন।



www.a2sys.co

আরো পড়ুন